সনাতন বিদ্যার্থী সংসদ

এসো ঋত-ঋদ্ধির পথে

মূলনীতি এবং উদ্দেশ্য

সনাতন বিদ্যার্থী সংসদ

আদর্শঃ

১. ‘সনাতন বিদ্যার্থী সংসদ (এস.ভি.এস)’ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধানের প্রতি শ্রদ্ধাশীল ধর্মীয়-সামাজিক সংগঠন। এটি সম্পূর্ণ অরাজনৈতিক, স্বতন্ত্র ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন।
২. সনাতন ধর্মীয় বিভিন্ন দল, মত, বর্ণ, সম্প্রদায় নির্বিশেষে সকল বিদ্যার্থীর সংগঠন।
৩. সনাতন ধর্মাবলম্বী সকলের জন্য “এক ধর্ম-সনাতন, এক মত-বৈদিক, এক পরিচয়-হিন্দু” -এই মূলমন্ত্রে বিশ্বাস।

লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যঃ

১. জাতিভেদ ও বর্ণপ্রথা নির্মূলকরণ
২. হিন্দু ধর্ম শিক্ষা ও সচেতনতা
৩. হিন্দু ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি সংরক্ষণ
৪. মানবাধিকার ও সহিষ্ণুতা
৫. যুগোপযোগী সমাজ সংস্কার
৬. পরিবেশ ও প্রাণী অধিকার সংরক্ষণ

ক. মূলনীতি :
১. এক অদ্বিতীয় পরমেশ্বরই এ বিশ্ব সংসার এবং সনাতন ধর্মের প্রবর্তক। তিনি সৎ, চিৎ (চিন্ময়) এবং আনন্দময়স্বরূপ । তিনি চিন্তার অতীত, সর্বশক্তিমান, সর্বজ্ঞাপক, সর্বান্তর্যামী, সর্বজ্ঞ, অভয়, কৃপাময় এবং সৃষ্টি, পালন ও লয় কর্তা। একমাত্র তাঁহারই শরণ নিতে হইবে এবং তাঁহারই উপাসনা করিতে হইবে।
২. জীবের চিন্তার অতীত এক অদ্বিতীয় ব্রহ্মেরই ভিন্ন ভিন্ন গুণ ও শক্তির প্রতীকী প্রকাশ হইলেন দেবতাগণ। তাই সাধক ভেদে সকল দেবতার উপাসনায় সবাইকে শ্রদ্ধাশীল হইতে হইবে।
৩. বেদ পরমেশ্বর কর্তৃক প্রকাশিত মানব জাতির পূর্ণাঙ্গ সংবিধান। অপৌরুষেয় সত্যবিদ্যাময় এ গ্রন্থই সনাতন ধর্মের একমাত্র ভিত্তিস্বরূপ। তাই সর্বপ্রকার শাস্ত্রীয় সিদ্ধান্ত নির্ধারিত হইবে পরমেশ্বরের নিঃশ্বাস স্বরূপ এ বেদের মাধ্যমে। বৈদিক জ্ঞানের সারাংশ শ্রীমদ্ভগবদ্গীতা সর্বমান্য গ্রন্থ এবং শ্রী শ্রী চণ্ডী অনুরূপ মর্যাদা পাইবে।
৪. সনাতন ধর্মে অনাদি অনন্ত ব্রহ্মের উপাসনা পঞ্চমতে ও পথে বিভাজিত। যথা- শাক্ত, শৈব, সৌর, গাণপত্য ও বৈষ্ণব। এর মধ্যে বাংলাদেশে প্রধানত শাক্ত, শৈব ও বৈষ্ণব তিনটি মত-পথের সম্প্রদায় বিদ্যমান। নিজ নিজ উপাস্য সম্প্রদায় ব্যতীত এই পঞ্চমতের সকল সম্প্রদায়ের প্রতি সমান শ্রদ্ধা পোষণ করিতে হইবে।
৫. সনাতন ধর্মাবলম্বী সকলের জন্য ‘এক ধর্ম (সনাতন), এক মত (বৈদিক) এবং এক পরিচয় (হিন্দু)’- এই মূলমন্ত্রে বিশ্বাস করিতে হইবে।
৬. ব্যক্তিকেন্দ্রিক ধর্মীয় মতবাদের ততখানিই গ্রহণযোগ্য যতখানি বেদানুমোদিত। তবে বেদানুগত সকল মহামানবের প্রতি সংযত শ্রদ্ধাশীল থাকিতে হইবে।
৭. সনাতন বিদ্যার্থী সংসদ সনাতন ধর্মীয় বিভিন্ন দল, মত, বর্ণ, সম্প্রদায় নির্বিশেষে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সংবিধানের প্রতি শ্রদ্ধাশীল একটি স্বতন্ত্র, ধর্মীয়-সামাজিক, সেবাব্রতী সংগঠন।
খ. লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য:
১. হিন্দু সমাজে প্রচলিত সকল প্রকার ধর্মীয় কুসংস্কার দূরীভূত করিয়া এক ঐক্যবদ্ধ জাতিতে পরিণত করা।
২. সনাতন ধর্মীয় ঐতিহ্য এবং সংস্কৃতির লালন ও সংরক্ষণ করা।
৩. সনাতন ধর্মাবলম্বীদের মানবাধিকার রক্ষা এবং জাগতিক ও পারমার্থিক কল্যাণের জন্য সদা নিয়োজিত থাকা।
গ. কর্মসূত্র:
১. মানবতার সর্বজনীন কল্যাণের লক্ষ্যে ‘বেদান্ত দর্শন’-এর অনুশীলন ও প্রচার।
২. সাপ্তাহিক ‘ধর্মচক্রে’ নিয়মিত অংশগ্রহণ এবং পরিচালনা।
৩. সনাতন ধর্মের প্রকৃত শাস্ত্রীয় ব্যাখ্যা তুলিয়া ধরা এবং সামাজিক বর্ণবাদ, ব্যক্তিকেন্দ্রিক গুরুবাদ, অস্পৃশ্যতা , যৌতুক প্রথা দূরীকরণ ও অসবর্ণ বিবাহে উৎসাহ প্রদান।
৪. দরিদ্র ও মেধাবী সনাতন বিদ্যার্থীদের বৃত্তি প্রদান, ধর্মান্তকরণরোধ, ধর্মীয় তথ্যসন্ত্রাস দূরীকরণ ও সচেনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে সেমিনার, কর্মশালা, আলোচনা সভা, শিক্ষাভ্রমণ ইত্যাদির আয়োজন।
৫. অসহায়, নিপীড়িত, দুর্গত এবং লাঞ্ছিত মানুষের পাশে থেকে সর্বাত্মক সহায়তা প্রদান।
৬. হিন্দু সমাজের সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে পত্রিকা এবং বিভিন্ন গ্রন্থাদির প্রকাশনা ও প্রচার।
৭. ‘জ্ঞান, সংস্কার এবং ঐক্য’ সংগঠনের এ প্রধান তিনটি ভিত্তিকে হিন্দু সমাজের মাঝে বাস্তবিক রূপায়ণের জন্য সদা নিয়োজিত থাকা।

কর্মসূত্রঃ

১. আত্মোন্নয়ন
২. অনুপ্রেরণা
৩. সুস্বাস্থ্য
৪. ইতিহাস শিক্ষা
৫. বৈদিক জ্ঞান

কার্যক্রমঃ

১. সাপ্তাহিক ধর্মচক্র পরিচালনা। বৈদিক শাস্ত্র অধ্যয়ন ও গবেষণা, ধ্যান, প্রার্থনা এবং বিবিধ প্রাসঙ্গিক গুরূত্বপূর্ণ বিষয়ে আলোচনা ।

২. ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি সংরক্ষণ, ধর্মান্তরকরণ এবং অপসংস্কৃতি রোধসহ সর্বপ্রকার তথ্যবিভ্রাট দূরীকরণে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করা।

৩. সামাজিক সংস্কার ও একতার লক্ষ্যে ধর্মের শাস্ত্রীয় ব্যাখ্যা তুলে ধরা এবং জন্মগত বর্ণবাদ, অস্পৃশ্যতা, বাল্য বিবাহ, যৌতুক প্রথা, নিরক্ষরতা দূরীকরণে এবং বিধবা ও তথাকথিত অসবর্ণে বিবাহে সবাইকে উৎসাহিত করা। প্রয়োজনীয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, সেমিনার ও আলোচনা অনুষ্ঠান আয়োজন করা।

৪. উপযুক্ত ছাত্র-ছাত্রীদের বৃত্তি প্রদান, যথাযথ দিকনির্দেশনা, আদর্শ ব্যক্তিত্ব ও ক্যারিয়ার গঠনসহ বিবিধ বিষয়ে সাহায্য করা।

৫. নিরক্ষরমুক্ত বাংলাদেশ গঠনে বিভিন্ন শিক্ষামূলক কার্যক্রম গ্রহণ করা। বিভিন্ন সামাজিক ও শিক্ষমূলক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে আদর্শ ও মানবিক শিক্ষা বিস্তারের পাশাপাশি দরিদ্র ছাত্রদের খণ্ডকালীন কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা।

৬. ‘পরামর্শ ও সাহায্য কেন্দ্র’ প্রতিষ্ঠা করে বিদ্যার্থীদের ব্যক্তিগত ও সামাজিক জীবনের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে সাহায্য করা।

৭. অত্র সংসদের মুখপত্র হিসেবে পত্রিকা প্রকাশনা। প্রয়োজনীয় গ্রন্থাদি প্রকাশনা ও প্রচার করা।

৮. ধ্যান, যোগ ও চরিত্রগঠন বিষয়ে কর্মশালা আয়োজন। ‘সংস্কৃত ভাষা শিক্ষা’ ও ‘সংক্ষিপ্ত সনাতন ধর্ম শিক্ষা’ কর্মশালা আয়োজন।

 

আশীর্বাণীঃ

সনাতন বিদ্যার্থী সংসদের কার্যক্রম শুরু থেকেই তার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য সাধনে কার্যকর এবং উত্তরোত্তর তা আরও শক্তিশালী হয়ে গতিশীল হচ্ছে। কারণ, এর পেছনে মহান সনাতন ধর্মের শত শত মনীষীর আশীর্বাদ ও ঐশ্বরিক শক্তি সহায় আছেন।

এস.ভি.এস নিম্নোক্ত মূলনীতি মেনে চলেঃ

ধর্ম রক্ষতি রক্ষিতঃ ।।

অর্থঃ যে ধর্ম রক্ষা করে, ধর্মও তাকে রক্ষা করে।

অর্থঃ যেখানে ধর্ম (ন্যায় নিষ্ঠা) আছে, সেখানে বিজয় (সাফল্য) নিশ্চিত। -মহাভারত

সংঘ শক্তি কলৌযুগে ।।

অর্থঃ কলিযুগে আমাদেরকে অবশ্যই সংঘবদ্ধভাবে সংগ্রাম করতে হবে।